রাশিয়ার তেলের ডিপোতে ইউক্রেনের হামলা, যে কঠোর হুশিয়ারি দিল রাশিয়া।

রাশিয়ার তেলের ডিপোতে ইউক্রেনের হামলা নিয়ে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছে ক্রেমলিন। তেলের ডিপোতে এই হামলা শান্তি আলোচনাকে বাধাগ্রস্ত করবে বলে জানিয়েছে মস্কো। বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ক্রেমলিন জানায়, এই হামলা শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে না।

এ ব্যাপারে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের একজন মুখপাত্র জানান, পুতিনকে ওই হামলার বিষয়ে অবহিত হয়েছে। শহরের জ্বালানি সরবরাহ যেন বিঘ্ন না হয়, সেই লক্ষ্যে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে ওই মুখপাত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার বেলগোরদ প্রদেশের গভর্নর শুক্রবার স্থানীয় সময় সকালে দাবি করেন, ইউক্রেনের দুটি এমআই-২৪ হেলিকপ্টার করে ইউক্রেন এ হামলা করে।

কিন্তু রাশিয়া ইউক্রেনকে যে এমআই-২৪ হেলিকপ্টার ব্যবহার করে হামলা চালানোর অভিযুক্ত করেছে, সেই এমআই-২৪ হেলিকপ্টার রাশিয়াও ব্যবহার করে।

ইউক্রেন ও রাশিয়ার দুপুর পেরিয়ে বিকেল হওয়ার পরও ইউক্রেন এখনো এ হামলার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।
এর ফলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ইউক্রেন কি সত্যিই এ হামলা চালিয়েছে?

না কি রাশিয়া ইউক্রেনের ওপর দায় চাপানোর জন্য ইউক্রেনকে অভিযুক্ত করেছে।

গণমাধ্যম বিবিসির প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক জোনাথান বিয়েল জানিয়েছেন, ইউক্রেনের পাইলটরা কম উচ্চতায় উড়ে গিয়ে হামলা চালাতে বেশ পটু।

কিন্তু প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক জোনাথান বিয়েল বলেছেন, রাশিয়ার মাটিতে গিয়ে এ মূহুর্তে হামলা চালাতে আগে ভাববে ইউক্রেন। তাছাড়া এই কাজে প্রচণ্ড সাহসেরও প্রয়োজন।

তিনিও রাশিয়ার মাটিতে গিয়ে ইউক্রেনের হামলা চালানোর বিষয়টি নিয়ে কিছুটা সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

তবে জোনাথান বিয়েল বলেছেন, ইউক্রেন যদি সত্যি সত্যি হামলা করে তাহলে প্রমাণ হবে তাদের বিমানবাহিনী এখনো বেশ শক্ত অবস্থানে আছে।

এদিকে এর আগে বেলগোরদ শহরের গভর্নর দাবি করেন, শুক্রবার সকালে ইউক্রেনের দুটি হেলিকপ্টার থেকে তেল ডিপোতে হামলা করা হয়। এ ঘটনায় সেখানে আগুন লাগে। আহত হন দুজন। তবে তা গুরুতর কিছু নয়। দমকল বাহিনী সেখানে কাজ করছে। আশপাশের মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বেলগোরদ শহরটি ইউক্রেনের উত্তর সীমান্তঘেঁষা রাশিয়ার একটি শহর। দুদিন আগে এই এলাকার একটি অস্ত্রাগারে বিস্ফোরণের ঘটনার পর অভিযোগের তীর ছোড়া হয় ইউক্রেনের দিকে। এবার অভিযোগ এলো তেল ডিপোতে হামলার।

About bdnews

Leave a Reply